বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ১৫ মাঘ ১৪২৭

অনলাইন ডেস্ক

Nov. 26, 2020, 5:14 p.m.

খুলনাকে হারাল রাজশাহী
খুলনাকে হারাল রাজশাহী
ভোরের আলো। - ছবি:

বঙ্গবন্ধু টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্টের তৃতীয় ম্যাচে জয় পেয়েছে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সাকিব-মাহমুদউল্লাহর জেমকন খুলনাকে ৬ উইকেটে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নেয় শান্ত বাহিনী। আগে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৬ রানের মাঝারী সংগ্রহ পেয়েছে দলটি। জবাবে ১৭.২ ওভারেই ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রাজশাহী।

খুলনার দেওয়া মাঝারী লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই অবশ্য উইকেট হারায় রাজশাহী। স্কোরবোর্ডে মাত্র ২৫ রান জমা হতেই খুলনাকে সাফল্য এনে দেন আল আমিন। আগের ম্যাচে ভালো খেলা ইমন এদিন ফিরে যান মাত্র ২ রানেই। দ্বিতীয় উইকেটে রনি তালুকদারকে নিয়ে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। দলীয় ৭২ রানে রনি আউট হলে ভাঙে তাদের জুটি। ২০ বলে ২৬ রান করে রিশাদ হোসেনের বলে আউট হন রনি।

তবে একপাশ আগলে রেখে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন শান্ত। তিনি তুলে নেন টুর্নামেন্টে নিজের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। ৩৪ বলে ৫৫ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস। ৬ চার ও ৩ ছয়ে এ ইনিংস সাজান শান্ত।

শান্ত আউট হওয়ার পর ফজলে মাহমুদ ও নুরুল হাসান সোহানকে নিয়ে বাকি কাজ সারেন একসময়ের তারকা ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ আশরাফুল। ফজলে মাহমুদ ১৬ বলে ২৪ রান করেন। আশরাফুল ২২ বলে ২৫ ও সোহান ৭ বলে ১১ রান করে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন।

খুলনার পক্ষে তরুণ লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেন শিকার করেন দুই উইকেট। এছাড়া আল আমিন ও শহিদুল একটি করে উইকেট শিকার করেন।

এর আগে, ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন খুলনার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে সুবিধা করতে পারেনি তারা। শুরুতেই কোন রান না করে ফিরে যান ওপেনার ইমরুল কায়েস। হতাশ করেছেন সাকিব আল হাসানও, ৯ বল থেকে ১২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন খুলনার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে সুবিধা করতে পারেনি তারা। শুরুতেই কোন রান না করে ফিরে যান ওপেনার ইমরুল কায়েস। হতাশ করেছেন সাকিব আল হাসানও, ৯ বল থেকে ১২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। এরপর একে একে এনামুল হক বিজয় (২৬), রিয়াদ (৭), জহুরুল ইসলাম (১) আউট হয়ে গেলে ৫১ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে খুলনা। সেখান থেকে দলের হাল ধরে শামিম-আরিফুল জুটি। দলীয় ১০০ রানে শামিম আউট হন ব্যক্তিগত ৩৫ রান করে। ২৫ বলের ইনিংসটি সাজান ৩টি চার ও ২টি ছয়ের মারে।

এরপর একে একে এনামুল হক বিজয় (২৬), রিয়াদ (৭), জহুরুল ইসলাম (১) আউট হয়ে গেলে ৫১ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে খুলনা। সেখান থেকে দলের হাল ধরে শামিম-আরিফুল জুটি। দলীয় ১০০ রানে শামিম আউট হন ব্যক্তিগত ৩৫ রান করে। ২৫ বলের ইনিংসটি সাজান ৩টি চার ও ২টি ছয়ের মারে।

শেষদিকে আরিফুলের ৩১ বলে ৪১ ও শহিদুল ইসলামের ১৭ রানের সুবাদে মোহাম্মদ আশরাফুলদের সামনে ১৪৭ রানের লক্ষ্য দাঁড় করে জেমকন খুলনা। মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর হয়ে মুগ্ধ ২ ও এবাদত, মেহেদী, আরাফাত সানি ১টি করে উইকেট নেন।