সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৭

অনলাইন ডেস্ক

Nov. 28, 2020, 1:40 p.m.

সাড়ে ৫ লাখ অসহায় মানুষ পেয়েছেন আইনি সহায়তা
সাড়ে ৫ লাখ অসহায় মানুষ পেয়েছেন আইনি সহায়তা
সাড়ে ৫ লাখ অসহায় মানুষ পেয়েছেন আইনি সহায়তা - ছবি:

গত দশ বছরে পাঁচ লাখ বায়ান্ন হাজার ছয়শ’ আটষট্টি জন দরিদ্র-অসহায় মানুষকে বিনা মূল্যে আইনগত সহায়তা প্রদান করেছে সরকার।

এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) জানায়, ২০০৯ সাল থেকে চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত আইন মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার মাধ্যমে এ সহায়তা প্রদান করা হয়। একই সময়ে সংস্থাটি ৪৪ কোটি ৬২ লাখ ২৩ হাজার ৩৯৬ টাকা দরিদ্র-অসহায় মানুষকে ক্ষতিপূরণ আদায় করে দিতে সক্ষম হয়েছে।

সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

আর্থিকভাবে অসচ্ছল, সহায় সম্বলহীন এবং নানাবিধ আর্থসামাজিক কারণে বিচারপ্রাপ্তিতে অসমর্থ জনগোষ্ঠীর আইনি অধিকার নিশ্চিতকল্পে তাদের আইনগত সহায়তা প্রদানের উদ্দেশ্যে সরকার ২০০০ সালে প্রণয়ন করে ‘আইনগত সহায়তা প্রদান আইন’।

সংস্থাটি বিগত ১০ বছরে ৬৪টি জেলা লিগ্যাল এইড অফিসের মাধ্যমে ৪ লাখ ১৫ হাজার ৬৬৪ জনকে, সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড অফিসের মাধ্যমে ২১ হাজার ১৯৪ জনকে, জাতীয় হেল্প লাইন কল সেন্টারের ১৬৪৩০ নম্বরে ফোন কলের মাধ্যমে ৯৬ হাজার ৩৯৪ জনকে এবং ঢাকা ও চট্টগ্রাম শ্রমিক আইনগত সহায়তা সেলের মাধ্যমে ১৯ হাজার ৪১৬ জনকে আইনগত সহায়তা প্রদান করেছে।

একই সময়ে সংস্থাটি ১ লাখ ৩৩ হাজার ৮৪১টি লিগ্যাল এইড মামলা নিষ্পত্তি করেছে। বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির মাধ্যমেও (এডিআর) ৩৩ হাজার ৩৭৯টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে।

জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার জাতীয় হেল্প লাইন কল সেন্টার (১৬৪৩০) বর্তমানে ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা হয়েছে এবং জনগণকে আইনি পরামর্শ সেবা দেওয়া হচ্ছে।

আইনি সহায়তা গ্রহণ সহজীকরণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল এ কল সেন্টার উদ্বোধনের পর থেকে অফিস চলাকালীন এ কল সেন্টার থেকে আইনি পরামর্শ সেবা দেওয়া হচ্ছিল।

সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে ২৪ ঘণ্টাই এ সেবা চালু রাখা হয়েছে। এ ছাড়া ‘ডিজিটাল লিগ্যাল এইড’ সেবা প্রদানের জন্য ২০১৮ সালের অক্টোবরে ‘বিডি লিগ্যাল এইড’ নামে একটি অ্যাপ চালু করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এতে দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে ঘরে বসেই বিনা খরচে আইনি সহায়তা পাচ্ছেন অসহায় ও অসচ্ছল বিচারপ্রার্থীরা।


ভোরের আলো/ভিঅ/২৭/২০২০