বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ১৫ মাঘ ১৪২৭

সুকান্ত অপি

Nov. 28, 2020, 9:01 p.m.

বরিশালের ফুটপাতে পিঠা পুলির উৎসব!
বরিশালের ফুটপাতে পিঠা পুলির উৎসব!
নগরীজুরে পিঠা তৈরির ব্যস্ততা। - ছবি: এন আমিন রাসেল, ভোরের আলো।

শীতের পিঠাপুলি বাঙালির সংস্কৃতির একটি অংশ। প্রতিবছরই শীতকালে নগরীজুরে পিঠা তৈরির ব্যস্ততা চোখে পড়ার মত। এবারও বরিশাল নগরীর বিভিন্ন স্থানে জমে উঠেছে শীতের পিঠাপুলির দোকান। 

গতকাল শনিাবর (২৮ নভেম্বর) বরিশাল নগরীর গীর্জা মহল্লা ও চকবারজার ঘুরে ছবি তুলেছেন ভোরের আলোর ফটো সাংবাদিক এন আমিন রাসেল।

শনিাবর বরিশাল নগরীর গীর্জা মহল্লা ও চকবারজার ঘুরে রাস্তার পাশের পিঠার ওই দোকানগুলোতে নানান ধরনের পিঠার পশরা দেখা গেছে। ভাপা পিঠা, নকশি পিঠা, চিতই পিঠা, ডিম চিতই পিঠা, পাটিসাপটা পিঠা হরেক নামের পিঠা। একেক ধরণের পিঠার দাম একেক রকম। সাধারণ চিতই পিঠা ৫ টাকা, নকশি পিঠা ১০ টাকা, ডিম চিতই পিঠা ২০ টাকা, ভাপা পিঠা ১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পথে-ঘাটে নিজেরা পিঠা তৈরি করে বিক্রি করেন অনেকে। এদের অনেকের সংসার চলে ওই পিঠা তৈরি ও বিক্রি করে। বেশির ভাগই পিঠা বিক্রি করে পরিবারের অর্থ যোগান দিয়ে থাকে। সেই অর্থ দিয়ে তারা পরিবার নিয়ে জীবনযাপন করেন। অসচ্ছল এসব পরিবারের মাঝে কিছুটা হলেও আর্থিক সচ্ছলতা আসে পিঠা বিক্রিতে। তাই শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে ফুটপাত জুড়ে চলছে পিঠা তৈরি ও বিক্রির উৎসব।

বরিশাল নগরের এ রকম দৃশ্য চোখে বেশি চোখে পড়বে হাতেম আলী কলেজ চৌমাথা, নতুল্লাবাদ, ব্রজোমন কলেজ, কালিবাড়ি রোড, প্রেসক্লাব, সদর রোড, বিবিরি পুকুর পাড়, বরিশাল সিটি করপোরেশন, লঞ্চঘাট, কেডিসি কলনী, ত্রিশ গোডউনসহ আরো অনেক যায়গায়। পুরো শীতজুড়ে চলবে এই ব্যবসা। এদের বেশিরভাগই শীত আসলে পিঠার দোকান নিয়ে রাস্তার পাশে বসে পড়েন। তবে কিছু কিছু দোকানী আছে তাদের সারা বছরই পিঠা তৈরি ও বিক্রি করতে দেখা যায়। 

শীতে ভাপা পিঠার প্রতি মানুষের নজর একটু বেশি থাকে। কেমন করে তৈরি হয় ভাপা পিঠা অনেকেরই জানা। ভাপা পিঠা তৈরি দেখতেও দারুন। চালের গুঁড়া, নারকেল, খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো হয় ভাপা পিঠা। ভাপা পিঠা পাতলা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে ঢাকনা দেয়া হাঁড়ির ফুটন্ত পানিতে ভাপ দিয়ে তৈরি করা হয়। এ কারণেই এর নাম ভাপা পিঠা। চালের গুঁড়া গুলিয়ে মাটির হাঁড়িতে বিশেষ উপায়ে তৈরি করা হয় চিতই পিঠা। অতি সাধারণ এই পিঠাটি গুড় বা ঝাল ভর্তা দিয়ে অনেকে খেতে পছন্দ করেন। তবে চিতই পিঠা বিক্রি হয় হরেক রকমের ভর্তা দিয়ে। মরিচ এবং ধনে পাতার ভর্তা দিয়ে বিক্রি হচ্ছে ওই পিঠা।