শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ৮ মাঘ ১৪২৮

অনলাইন ডেস্ক

Jan. 14, 2022, 11:18 p.m.

১৫ মিনিট হাঁটুন!
১৫ মিনিট হাঁটুন!
সংগৃহীত। - ছবি:

শারীরিক শক্তিবৃদ্ধি থেকে শুরু করে মন ভালো রাখার কাজও করতে পারে খানিক্ষণ হাঁটাহাঁটি। আর যারা হাঁটার একদমই সময় পান না, তারা দিনের একটা সময় বের করে ১৫ মিনিট হাঁটলেই পাবেন দারুণ কিছু উপকার।

ফুরফুরে মন: বাইরে ১৫ মিনিট হাঁটলেই মনের ভেতর লুকিয়ে থাকা অবসাদ কেটে যাবে। অকারণের বিষাদ কেটে গেলেই দেখবেন একটা কিছু করার আগ্রহ আবার জাঁকিয়ে বসবে। এমনটা জানিয়েছে আমেরিকান জার্নাল অব প্রিভেনশন মেডিসিন।

অ্যাজমায় সমস্যা নেই: ব্যায়ামের সঙ্গে যাদের অ্যাজমার সম্পর্ক আছে, তারাও ১৫ মিনিট হেঁটে নিতে পারেন। ধীরেসুস্থে ১৫ মিনিট হাঁটা বা মিনিট দশেক সাঁতার কাটলে সেটা আপনার শ্বাসপ্রশ্বাসে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না।

বিপাকক্রিয়া: নাইজেরিয়ান মেডিক্যাল জার্নালের প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে প্রতিদিন একনাগাড়ে ১৫ মিনিট হাঁটলেই হজমের সমস্যা প্রায় ৩০ শতাংশ দূর হয়।

ভালো ঘুম: দিনের একটা সময় খানিকটা দ্রুতগতিতে ১৫-২০ মিনিট হেঁটে দেখুন। রাত হলে আর ফোনের পর্দায় আর চোখ দুটো রাখতে ইচ্ছে করবে না। ঘুমে জড়িয়ে আসবেই।

মগজের উপকার: মাটিতে পায়ের পাতার চাপে গোটা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে স্পন্দন। যা কিনা ধমনীতেও প্রভাব ফেলে। রক্ত সঞ্চালন বাড়ে মস্তিষ্কে। এতে করে পরে বয়সের সঙ্গে সঙ্গে ভুলে যাওয়া কিংবা কগনিটিভ রোগের হাত থেকে বেঁচে যাবেন।

পেইনকিলার: পা ও কোমর ব্যথার মতো কিছু ব্যথা আছে শরীরে সারাক্ষণ লেগেই থাকে। দিনে নিয়ম করে কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করলে পরে আর পেইনকিলার খেতে হবে না। বিশেষ করে লোয়ার ব্যাক পেইনের রোগীদের জন্য হাঁটার বিকল্প নেই।

চোখের জন্য: রেটিনাল ডিজেনারেশনের ঝুঁকি কমায় হাঁটাহাঁটি। যারা নিয়মিত হাঁটেন, দেখা যায় বুড়ো হয়ে গেলেও তাদের চোখে চশমা পরতে হচ্ছে না।