রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬

সাইফুর রহমান মিরণ

March 24, 2020, 9:22 p.m.

করোনায় কতটা ক্ষতি হলে সতর্ক হবো!
করোনায় কতটা ক্ষতি হলে সতর্ক হবো!
সম্পাদকীয় - ছবি: ভোরের আলো

করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা দুনিয়ায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা ঝড় বইছে। করোনায় দেশে দেশে মানুষের মৃত্যুর মিছিল বাড়ছে। প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে অসংখ্য মানুষ। চীনের পরে ইতালীর অবস্থা ভয়াবহ। চীন আধুনিক চিকিৎসা সামগ্রি দিয়ে করোনাকে জয় করেছে। ইতালী বাংলাদেশের চেয়ে চিকিৎসাসহ সবদিক দিয়ে এগিয়ে। তারপরও তারা করোনায় বিপর্যস্ত। কিন্তু বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ বিশ্বাসই করতে চাইছে না। ভীড় এড়িয়ে চলতে অনুরোধ জানিয়েও কাজ হচ্ছে না। উল্টো মসজিদে নামাজ পড়ার জন্য মিছিল হয়েছে। বাধ্য হয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করা হয়েছে। জনসমাগম থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে নিয়মিত বাহিনীর সঙ্গে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। তারপরও আমরা সচেতন হচ্ছি না। কতটা বিপর্যয় দেখলে আমরা সতর্ক ও সচেতন হবো বুঝতে পারছি না।

বাংলাদেশের শিক্ষিত মানুষদের সমস্যা অশিক্ষিতদের চেয়ে বেশি। অনেক শিক্ষিত মানুষ করোনার ভীতিকে উড়িয়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে চাইছে। তাদের মধ্যে একটা অংশ থানকুনি পাতা, কাঠাল পাতা, আমের মুকুলের মধু, কিংবা গোচোনা খাওয়ার পক্ষে। এরা করোনার ভয়াবহতা মানতেই চায় না। তারা মসজিদ, মন্দির, জনসভা, মিলাদ মাহফিল করতে চায়। এদের জন্য গোটা জাতি আজ শঙ্কার মধ্যে পড়েছে। করোনা থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের আল্লাহ, ঈশ^র, ভগবানের সঙ্গে অবশ্যই প্রতিরোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

আমাদের দেশে চিকিৎসা ব্যবস্থার তেমন উন্নয়ন ঘটেনি। স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধেই ব্যবস্থা নেই। সেখানে করোনা প্রতিরোধ করবো কি দিয়ে। যে চিকিৎসক ও নার্সরা চিকিৎসা দেবে তাদের সুরক্ষায় কোন ব্যবস্থা নেই। এমন অবস্থায় করোনার ভয়াবহতা দেখা দিলে চিকিৎসাহীন অবস্থায় মরতে হবে। আমাদের যেন সেই অবস্থা দেখতে না হয়। আমরা প্রত্যেকে যেন করোনা সম্পর্কে দেওয়া প্রচারণা ও নির্দেশনা মেনে চলি। কেবল আমি নয়, আমাদের সবার জন্য উদ্যোগ নিতে হবে।

আমরা যেন করোনাকে ধর্ম দিয়ে বিচার না করি। ধর্মীয় অনুভূতির সঙ্গে সঙ্গে যেন আধুনিক বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করে প্রতিরোধে সচেতন হই। এইজন্য কেবল জল, স্থল ও আকাশ পথ বন্ধ করলেই হবে না। আমাদের সচেতন থেকে রোগীর পাশে থাকতে হবে। সেইজন্য অবশ্য অবশ্যই চিকিৎসক, নার্স এবং চিকিৎসার সঙ্গে যুক্তদের সুরাক্ষায় আগে উদ্যোগ নিতে হবে। সরকার যেন দ্রত সেই উদ্যোগ নেয়। তাহলে আমরা সবাই মিলে করোনা মোকাবেলা করতে সমর্থ হবো। আবারো বলতে চাই, করোনায় ভীতি নয়, সচেতন এবং সচেতন হতেই হবে।