শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭

হায়াতুজ্জামান মিরাজ,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি

April 4, 2020, 10:56 p.m.

আমতলীতে মাছের সাথে শত্রুতা! পুকুরে বিষ
আমতলীতে মাছের সাথে শত্রুতা! পুকুরে বিষ
বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গোজখালী গ্রামে পুকুরে অজ্ঞাত দুস্কৃতিকারীরা - ছবি:

বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গোজখালী গ্রামে একটি পুকুরে অজ্ঞাত দুস্কৃতিকারীরা বিষ দিয়ে হাজার হাজার মাছ মেরে  ফেলছে। এতে প্রায় ৮ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী ক্ষতিগ্রস্ত পুকুর মালিকের। 

জানাগেছে, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতের কোন এক সময় উপজেলার গোজখালী গ্রামের শাহজাহান দফাদারের (জেলা পরিষদ থেকে লীজ নেয়া) দের একর জমির পুকুরে বিষ দিয়ে তার চাষকৃত বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় মাছ মেরে ফেলছে অজ্ঞাত দুস্কৃতিকারীরা। শুক্রবার বিকেলে শাহজাহান দফাদার পুকুরে মাছের খাবার দিতে গিয়ে দেখতে পান তার পুকুরের চাষকৃত মাছ মরে ভাসতেছে। এ সময় শাহজাহান স্থাণীয় প্রতিবেশী মনোরঞ্জন কীর্তনিয়া, চাঁন মিয়া ডাক্তার, রেখা রাণী, মামুন শিকদার, ইউপি সদস্য সোহাগ মোল্লা ও ফিরোজা বেগমকে ডেকে তাদের বিষয়টি দেখান। তারা পুকুরপাড়ে এসে হাজার হাজার ছোটবড় বিভিন্ন প্রজাতির মাছ মরে পুকুরে ভেসে থাকতে দেখেন। শুক্রবার সন্ধ্যার পরে শাহজাহান দফাদার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এ্যাড. নুরুল ইসলাম ও আমতলী থানায় মৌখিকভাবে জানান। শনিবার সকালে তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দ্রুত দুস্কৃতিকারীদের শনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন। এ ঘটনায় শাহজাহান দফাদারের প্রায় ৮ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি জানান।

স্থাণীয় প্রতিবেশী মনোরঞ্জন কীর্তনিয়া, চাঁন মিয়া ডাক্তার ও মামুন শিকদার বলেন, অজ্ঞাত দুস্কৃতিকারীরা শাহজাহানের পুকুরে বিষ দিয়ে তার চাষকৃত বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় মাছ মেরে ফেলেছে। 

স্থাণীয় ইউপি সদস্য সোহাগ মোল্লা বলেন, ধারনা করা হচ্ছে অজ্ঞাত দুস্কৃতিকারীরা পুকুরে বিষ দিয়ে মাছগুলো মেরে ফেলছে।

পুকুর মালিক শাহজাহান দফাদার বলেন, আমি শুক্রবার বিকেলে পুকুরে মাছের খাবার দিতে এসে দেখি পুকুরে বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় মাছ মরে ভেসে রয়েছে। এমকি দুটি মাছরাঙ্গা সাপও মরে রয়েছে। আমার ধারনা আমাদের কোন শত্রু পক্ষ অথবা দুস্কৃতিকারীরা আমার ক্ষতি সাধনের জন্য পুকুরে বিষ দিয়ে মাছগুলো মেরে ফেলছে। আমি এর বিচার চাই। এতে আমার প্রায় ৮ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

গুলিশাখালী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এ্যাড. মোঃ নুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। উপজেলা মৎস্য বিভাগ পানি পরীক্ষা করে দেখতেছেন বিষ দিয়ে মাছগুলো মারা হয়েছে নাকি অন্য কোন কারনে মারা যাচ্ছে।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসের ক্ষেত্র সহকারী জগদিশ চন্দ্র বসু বলেন, পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরেছে কিনা তা পরীক্ষা করার কোন যন্ত্র আমাদের নেই। তবে এই পুকুরের প্রচুর পরিমানে মাছ মারা গেছে।

আমতলী থানার পরিদর্শক মোঃ শাহআলম মুঠোফোনে বলেন, এ বিষয়ে লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রকৃত দুস্কৃতিকারীকে শনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে