বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

April 18, 2020, 10:05 p.m.

বরিশালে লকডাউনের মধ্যে ক্রেতা সমাগম করে মদ বিক্রির অভিযোগ
বরিশালে লকডাউনের মধ্যে ক্রেতা সমাগম করে মদ বিক্রির অভিযোগ
শনিবার শতাধিক লাইসেন্সবিহীন ব্যক্তির কাছে অবৈধভাবে মদ বিক্রি - ছবি: এন আ‌মিন রা‌সেল

বরিশালে করোনা এড়াতে নগরীরসহ জেলাব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করা হলেও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয়ে শতাধিক ক্রেতা সমাগম করে খুচরা মূল্যে মদ বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ তুলতে গেলে বেসরকারি একটি টেলিভিশনের ক্যামেরাপার্সনকে মারধর করে অবরুদ্ধ করে রাখে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কতিপয় কর্মচারী। যদিও পরে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চায় তারা।


বরিশালের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয়ে প্রায়ই খুচরা মূল্যে লিটার প্রতি ৫০০ টাকা দরে দেশীয় মদ বিক্রি হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। যার সরকারি মূল্য ৮৮ টাকা। শনিবার শতাধিক লাইসেন্সবিহীন ব্যক্তির কাছে অবৈধভাবে মদ বিক্রির খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে গোপনে ভিডিও ধারন করছিলেন বেসরকারি বাংলাভিশন টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যান কামাল হোসেন। এ সময় কামাল হোসনকে মারধর করে ক্যামেরা ও মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয় ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী মো. হাসিব,  মো. রোকন ও মো. রাজিব। খবর পেয়ে অন্যান্য সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। 


এ সময় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ওয়্যারলেস অপারেটর মো. হাসিব নিজের ভুল স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। 
এদিকে অনেক লোক সমাগমের খবরে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয়ে অভিযান চালায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুল ইসলাম। র‌্যাবের উপস্থিতিতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে এক কনটেইনার মদ ফেলে দেয়া হয়। এছাড়া ১৮০ লিটার মদ অধিদপ্তরের একটি কক্ষে আটকে সিলগালা করে দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। 


এ সময় ভ্রাম্যমান আদালত ওই কার্যালয়ের বিভিন্ন কক্ষে লুকিয়ে থাকা মদের খুঁচরা ক্রেতাদের খুঁজে বের করেন।
জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুল ইসলাম জানান, অভিযুক্তদের সরাসরি শাস্তির আওতায় আনার ক্ষমতা নেই তার। তাই বিষয়টি ঢাকায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরকে লিখিতভাবে জানানো হচ্ছে। তারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেবেন।


অপরদিকে ওই প্রতিষ্ঠানের বিভাগীয় প্রধান মো. হাফিজুর রহমান অফিস ভবনের চতুর্থ তলায় বসবাস করলেও তিনি এর কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন। তবে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন তিনি।