মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

অনলাইন ডেস্ক

May 20, 2020, 6:51 p.m.

পটুয়াখালীর অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত
পটুয়াখালীর অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত
রোববার নগরীর নতুন বাজার সংলগ্ন মোড়কখোলাপুল এলাকার ই্মারত শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যলয়ে ত্রাণের খাদ্য সামগ্রী শ্রমিকদের দেওয়া হয়। - ছবি:

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও অমাবশ্যার প্রভাবে সাগর ও নদীতে পানি ৩ ফুট বেড়েছে। এতে পটুয়াখালীতে এ পর্যন্ত অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। 

এছাড়া কলাপাড়ায় সাধারণ মানুষকে সাইক্লোন শেল্টারে আসার প্রচারণা কাজ চালাতে গিয়ে নৌকা ডুবে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) টিম লিডার সৈয়দ শাহআলম (৬০) নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বুধবার  সকালে এ ঘটনা ঘটে।

কলাপাড়ার এক ইউনিয়নের ১৭টি গ্রাম ও রাঙ্গাবালীর আটটি গ্রাম, পটুয়াখালী সদরের কমলাপুর ইউনিয়নে দুইটি, ইটবাড়িয়া তিনটি, জৈনকাঠী একটি, ছোট বিঘাই একটি প্লাবিত হয়েছে। এছাড়াও গলাচিপা, মির্জাগঞ্জ, দশমিনা ও বাউফল উপজেলাও কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে বলে জানা যায়।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদুল হক জানান, খবর পেয়ে তিনি সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে চলে আসেন। ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম আসার পর উদ্ধার কাজ শুরু করেছে।

বুধবার দুপুর পর্যন্ত ৯০৭টি সাইক্লোন শেল্টারে প্রায় চার লাখ মানুষ ও লক্ষাধিক গবাদিপশু আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে বলে জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারণে পায়রা সমুদ্র বন্দর ও পটুয়াখালী জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া বিভাগ।

রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসফাকুর রহমান জানান, ৭৪০টি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।আশ্রয় কেন্দ্রের মানুষের খাওয়ার জন্য শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া যারা রোজা আছেন তাদের ইফতারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।