বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

July 13, 2020, 11:12 p.m.

অশ্বিনী কুমারকে নিয়ে বিভ্রান্তি না ছাড়ানোর আহ্বান
অশ্বিনী কুমারকে নিয়ে বিভ্রান্তি না ছাড়ানোর আহ্বান
মতবিনিময় সভা। - ছবি: ভোরের আলো।

মহাত্মা অশ্বিনী কুমার সাবেক বাকেরগঞ্জ জেলা, বাকলা, চন্দ্রদ্বীপ এবং বর্তমান বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলের শিক্ষা বিস্তারের অনন্য মানুষ। তিনিই অবহেলিত এই সজনপদে মাধ্যমিক স্কুল এবং উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। তাঁর বাড়িতেই বর্তমান সরকারি বরিশাল কলেজ প্রতিষ্ঠিত। মহাত্মা অশ্বিনী কুমারকে নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো কোভাবেই কাম্য নয়।

বরিশালে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় ওই আহ্বান জানিয়েছেন না বরিশালের সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা।

সোমবার বিকেল সাড়ে চারটায় নগরের সদর রোডে কীর্তনখোলা মিলনায়তনে ওই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধা কেএসএ মহিউদ্দিন মানিক বীরপ্রতীক, বরিশাল সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক শাহ সাজেদা, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি বরিশাল জেলার সভাপতি নজরুল হক নীলু, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সভাপতিম-লীর সদস্য শুভংকর চক্রবর্তী, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি বরিশাল জেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দুলাল মজুমদার, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি অ্যাড. একে আজাদ, সাংবাদিক ইউনিয়ন বরিশালের সভাপতি স্বপন খন্দকার, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ বরিশাল জেলার আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন, সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী, খেলাঘর বরিশাল জেলার সভাপতি অধ্যাপক নজমুল হোসেন আকাশ, বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সভাপতিম-লীর সদস্য আজমল হোসেন লাবু, সমকাল বরিশাল ব্যুরো প্রধান পুলক চ্যাটার্জী, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সুশান্ত ঘ্ষো, গণনাট্য সংস্থার আজিজুর রহমান খোকন, নদী-খাল জলাশয় রক্ষা আন্দোলনের সদস্য সচিব কাজী এনায়েত হোসেন শিবলু, অশি^নী কুমার স্মৃতি সংসদের সভাপতি স্নেহাংশু বিশ্বাস, সুরঞ্জিত দত্ত লিটু, প্রগতি লেখক সংঘের সাধারণ সম্পাদক অপূর্ব গৌতম, চারুকলা বরিশালের অ্যাড. সুভাষ দাস নিতাইসহ অনেকে।

মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত দক্ষিণবঙ্গের শিক্ষার আলোকবর্তিকা ছিলেন। কেউ কেউ বলতে চাইছেন তাঁর বাসভবনের সম্পত্তি বিক্রি হয়েছে। বাস্তবে এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। পাকিস্তান আমলে অশ্বিনী কুমার দত্তের বাসভবেন একত্রে হিন্দু, মুসলিম ও অন্যান্য ধর্মের ছাত্ররা থাকতো। একজন অসাম্প্রদায়িক চিন্তার মানুষকে নিয়ে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। পাকিস্তান আমলে সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দিতে পারেনি। অথচ মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক চিন্তার বীজ বপন করার চেষ্টা শুরু হয়েছে। এই অপচেষ্টা বন্ধে আওয়ামী লীগসহ সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে একজোট হওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন বক্তারা। একই সঙ্গে সরকারি বরিশাল কলেজের নাম পরিবর্তন করে অশ্বিনী কুমারের নামে করার যে প্রস্তাবনা সরকার নিয়েছে সেটা বাস্তবায়ন করার জন্য সবার সহযোগিতাও কামনা করেছেন। 

মতবিনিময় সভায় শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাড. মানবেন্দ্র বটব্যালকে আহ্বায়ক করে একটি কমিটি করার প্রস্তাব করা হয়। ওই কমিটিতে বরিশালের সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক, পেশাজীবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের অন্তর্ভুক্তির আহ্বান জানানো হয়।