শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বার ২০২০, ৩ আশ্বিন ১৪২৭

অনলাইন ডেস্ক

July 28, 2020, 6:49 p.m.

বর্ষায় বাংলার পথে প্রান্তরে ফোটা ফুলটিকে চেনেন কি?
বর্ষায় বাংলার পথে প্রান্তরে ফোটা ফুলটিকে  চেনেন কি?
‘চন্দ্রপ্রভা - ছবি: সংগৃহীত

বসন্তকে ঋতুরাজ বলা হলেও বৈশিষ্ট্য বিচিত্রতায় ষড়ঋতুর দেশে বর্ষা একটু বেশিই আকর্ষণীয়। রিমঝিম বৃষ্টির শীতল ছোঁয়ায় প্রাণে চাঞ্চল্য আসে প্রকৃতির। নব সজীবতায় বাহারি রঙের সুগন্ধি ফুলের সমাহার বর্ষার স্বতন্ত্র রূপ যেন বাড়িয়ে দেয় কয়েকগুণ। বর্ষায় ফোটে হলদে রঙা সুন্দর ফুল ‘চন্দ্রপ্রভা’। ঘণ্টার মতো দেখতে গাঢ় হলুদ রঙের গন্ধহীন এ ফুলকে কেউ আবার সোনাপাতি নামেও চিনে। গ্রীষ্ম, বর্ষা বা হেমন্ত এ তিন ঋতুতে দেখা মিললেও চন্দ্রপ্রভা দলবেঁধে দলমেলে সবচেয়ে বেশি ফোটে বর্ষাতেই। ডালের আগায় থোকায় থোকায় হলুদ ফুলে ছেয়ে যায় পুরো গাছ। উদ্ভিদরাজ্যে Bignoniaceae পরিবারের সদস্য এটি। বৈজ্ঞানিক নাম Tecoma stans।

 ঘণ্টাকৃতির ফুলটি বড় হলে কিছুটা মাইকসদৃশ মনে হয় বলে এটি অনেকের কাছে মাইক ফুল নামেও পরিচিত। শুধু সৌন্দর্যপ্রেমীদের চোখ নয়, পথে চলতে সাধারণ পথিকেরও নজর কাড়ে চন্দ্রপ্রভা। মিষ্টি কোনো ঘ্রাণ না থাকলেও ফুলটি মৌমাছিসহ অন্য কীটপতঙ্গকে আকর্ষণ করার ক্ষমতায় যেন ঈর্ষায় কাতর হয় অন্যসব ফুল। চন্দ্রপ্রভা চিরসবুজ উদ্ভিদ। এর আদি নিবাস যুক্তরাষ্ট্রে। ভারজিন আইল্যান্ডের ‘অফিসিয়াল ফ্লাওয়ার’ এটি। চোঙাকৃতির দলমন্ডল ৩ থেকে ৪ সে.মি. চওড়া হয়। মাথা কিছুটা ছড়ানো। ফল শুকালে বীজ সংগ্রহ করা যায়। বীজ আকারে ছোট। আমাদের দেশে চন্দ্রপ্রভা খুব বেশি চোখে না পড়লেও সম্প্রতি বড় বড় অফিস আদালতের সামনে ও স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে চন্দ্রপ্রভা ব্যাপকভাবে রোপণ করা হচ্ছে। দ্রুত বর্ধনশীল এ গাছ বড় উঠান বা বাসার ছাদেও টবে বীজ এনে কিংবা কলম করে লাগানো যায়।
এই বর্ষায় আপনার বাড়িটিও চন্দপ্রভা ফুলের রঙে রাঙিয়ে তুলুন।