মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবার ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭

অনলাইন ডেস্ক

Aug. 17, 2020, 10:40 p.m.

দারুচিনির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন
দারুচিনির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন
খবর প্রতীকী। - ছবি: সংগৃহীত।

সুগন্ধি মশলা হিসেবে পরিচিত দারুচিনি। তবে এটি যে শুধু খাবারের সুগন্ধ আর স্বাদ বাড়ায়, তা কিন্তু নয়। বরং নানা অসুখ থেকে দূরে থাকতেও সাহায্য করে এটি। এই মশলা রক্ত পরিশোধক হিসাবে খুব উপকারী । দারচিনি আমাদের শরীরের বাড়তি মেদ ঝরাতে সাহায্য করে। পাশাপাশি কোলেস্টেরল-সর্দি-কাশি পেটের রোগ নিরাময়েও সাহায্য করে থাকে।

আপনি যদি দারুচিনির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খান তবে একসঙ্গে অনেক উপকার পাবেন। সর্দি-কাশিতে এক চামচ মধুর সঙ্গে দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে সকালে ও সন্ধ্যায় খেলে পাওয়া যায়। আবার মাথাব্যথা দূর করতেও সাহায্য করে দারুচিনি। দারুচিনির গুঁড়া সামান্য পানির সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে মাথায় লাগালে মাথাব্যথা থেকে মুক্তি মিলবে দ্রুত।
কোমর কিংবা হাঁটু ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছেন এমন লোকের সংখ্যা কম নয়। এমনটা হলে এককাপ হালকা গরম পানিতে দারুচিনির গুঁড়ার সাথে মধু মিশিয়ে সেই পেস্ট আক্রান্ত স্থানে হালকা করে লাগিয়ে মালিশ করুন। এতে অনেকটাই আরাম পাবেন। আবার এই পেস্ট খেলেও সমান উপকার পাবেন।

ত্বকে নানারকম সমস্যা হয় অনেকেরই। দারুচিনির ব্যবহারে ত্বকের সমস্যা থেকে কিছুটা মুক্তি পেতে পারেন। অনেকের মুখে আবার রিঙ্কল পড়ে। সেসব জায়গায় দারুচিনি আর মধুর পেস্ট বানিয়ে ব্যবহার করলে এই সমস্যা দূর হতে পারে। দারুচিনি গুঁড়ার সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে মুখে নিয়মিত ব্যবহার করুন। ব্রণ থেকে মুক্তি পাবেন সহজেই।

পেটের সমস্যা থেকেও মুক্তি দিতে পারে দারুচিনি। দারুচিনি আর মধু একসঙ্গে মিশিয়ে খেলে গ্যাস, পেট ব্যাথা থেকে আরাম পাওয়া যায় আর খাবার হজমও হয় খুব দ্রুত।
মেদ কমাতেও সাহায্য করে দারুচিনি। চায়ের সঙ্গে দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে এক গ্লাস পানিতে ফুটিয়ে নিন। এরপর তাতে এক টেবিল চামচ বমধু মিশিয়ে সকালের খাবার খাওয়ার আধাঘণ্টা আগে খেয়ে নিন। এটি নিয়মিত খেলে শরীরের অতিরিক্ত মেদ ঝরে যেতে সাহায্য করবে।

দারুচিনি আর মধু মিশিয়ে খেলে তা ধমনীতে কোলেস্টেরল জমতে দেয় না, হার্টের রোগ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা কমে যায়। যারা হার্ট অ্যাট্যাকে আক্রান্ত হয়েছেন তারা নিয়মিত এটি খেলে ভবিষ্যতে আবার অ্যাটাকের সম্ভাবনা অনেকটা কমে যেতে পারে।

দুই চামচ মধুর সঙ্গে তিন চামচ দারুচিনি আধ লিটার হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে খেলে ২ ঘণ্টার মধ্যে প্রায় ১০% কোলেস্টেরল লেভেল নিচে নামতে সাহায্য করে।