সোমবার, ২৬ অক্টোবার ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭

সাইফুর রহমান মিরণ

Oct. 8, 2020, 12:35 a.m.

ধর্ষণের অভিযোগে ৪ শিশু গ্রেপ্তার! নিরাপরাধ শিশু যেন শাস্তি না পায়
ধর্ষণের অভিযোগে ৪ শিশু গ্রেপ্তার! নিরাপরাধ শিশু যেন শাস্তি না পায়
খবর প্রতীকী। - ছবি: ভোরের আলো।

সারা দেশে সংঘটিত নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনায় গোটা দেশ ক্ষুব্ধ। বিশেষ করে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে ধর্ষণের পর নির্যাতন এবং সিলেট এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে দলবেধে ধর্ষণের ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা অপকর্মের কথা স্বীকারও করেছে। ধর্ষণকারীদের এবং নারী নির্যতনকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবিতে দেশ উত্তাল। ধর্ষণকারী এবং নারী নির্যাতনের ঘটনায় শাস্তি না হওয়ায় দিন দিন নারীরা নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে পড়ে যাচ্ছে। দৃঢ়তার সঙ্গে এইসব দুবৃত্তদের বিচারের আওতায় আনা দরকার।

এরকম একটা পরিস্থিতিতে বরিশালে ধর্ষণের দায়ে চার শিশুকে গ্রেপ্তার এবং তাদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়েরের ঘটনা আমাদের বিব্রত করেছে। গতকাল বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে তাদের হাজির করা হলে আদালত অভিযুক্তদের বয়স কম হওয়ায় ৪ শিশুকে যশোর শিশু-কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। এঘটনায় আমাদের নতুন করে ভাবাচ্ছে। আমরা বলতে চাই কোন নিরাপরাধ শিশু যেন শাস্তির আওতায় না আসে।

এদিকে ৯ বছরের শিশুর হাতে খেলার সাথী নারী শিশু ধর্ষণের ঘটনায় নানান প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে গতকাল আদালতে চার শিশুকে দেখে এমন প্রশ্ন জাগাটা স্বাভাবিক। ধর্ষণের কথা বলে যেন শিশুদের শঙ্কার মধ্যে ফেলে দেওয়া না হয়। আমরা জানি না এই শিশুরা সত্যিকার ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে কি না। কোন ঘটনার বলি যেন এই শিশুরা না হয়। দেশের ঘৃন্য ধর্ষণের ঘটনাগুলোকে অন্যদিকে নিয়ে না যায়। আমাদের দৃষ্টি যেন অন্যদিকে নিয়ে যাওয়া না হয়। 

যে মুহূর্তে নোয়াখালীর মেগমগঞ্জের নির্মম নির্যাতনের শিকার নারীকে সুবিচার পেতে আন্দোলন করছে সাধারণ মানুষ। আন্দোলনে সোচ্চার হচ্ছে সিলেটের এমসি কলেজের ধর্ষণের বিচার দাবিতে। তখন শিশু দ্বারা শিশু ধর্ষর্ণের ঘটনা আমাদের নতুন করে চিন্তায় ফেলে দিচ্ছে। ধর্ষণের ঘটনা দিয়ে কোন শিশুকে যেন ব্যবহার করা না হয় সেদিকে নজর দেওয়ার জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীসহ সবার দৃষ্টি কামনা করছি।

আমরা চাই, দেশের সকল প্রকার ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। যাতে যঘন্যতম এবং নির্মম ওইসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে। একই সঙ্গে ধর্ষণের মামলায় যেন কোন নিরাপরাধ শিশুর শাস্তি না হয়।