শনিবার, ২৮ নভেম্বার ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

Oct. 18, 2020, 4:49 p.m.

বরিশালে সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ আছে : সফিকুজ্জামান
বরিশালে সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ আছে : সফিকুজ্জামান
মতবিনিময় সভা। - ছবি: ভোরের আলো।

বরিশালে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আইআইটি-২ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম সফিকুজ্জামান বলেছেন, ভোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী দেশে সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। একটি মহল গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে বাজার অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। কোন গুজবে কান না দিয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী পণ্য ক্রয় করতে হবে।

রোববার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসনের সভাকক্ষে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ ও বাজার মূল্য স্থিতিশীল রাখতে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন অতিরিক্ত সচিব সফিকুজ্জামান।

জেলা প্রশাসন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর বিভাগীয় কার্যালয়ের উদ্যোগে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আইআইটি-২ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম সফিকুজ্জামান।

জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক খন্দকার আনোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নাঈমুল হক, মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মো. জাকারিয়া রহমান, জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. নুরুল আলম, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবু সাইদ, কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) জেলা সভাপতি রঞ্জিত দত্ত। এছাড়া চেম্বার প্রতিনিধি, নগরীর বিভিন্ন বাজার কমিটির নেতৃবৃন্দ, আড়তদার ব্যবসায়ী, বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধি এবং সুশীল সমাজ নেতৃবৃন্দ সভায় অংশগ্রহণ করেন।

সভায় অংশগ্রহণকারীরা নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক ও মূল্য সহনীয় রাখতে বিভিন্ন সুপারিশ তুলে ধরেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম সফিকুজ্জামান বলেন, ভোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী দেশে সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। একটি মহল গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে বাজার অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। কোন গুজবে কান না দিয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী পণ্য ক্রয় করতে হবে। কোনো পন্য মজুদ করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি না করা এবং অধিক দামে পণ্য বিক্রি না করার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। 

তিনি বলেন, সরকার নির্ধারিত মূল্যের অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমদানী পন্যের বিকল্প উৎস্য সৃষ্টি এবং যেসব পন্যের সংকট হতে পারে আগামীতে সেসব পন্যের উৎপাদন বাড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দেন তিনি। টিসিবির চলমান কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পাশপাশি বেসরকারি নিয়ন্ত্রণ কমানোর জন্য টিসিবির মাধ্যমে কিছু নিত্য পন্য আমদানী করা হচ্ছে বলে সভায় জানান বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব।